মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সিটিজেন চার্টার

সিটিজেন চার্টার

প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তার জন্য আনসার মোতায়েন :

পূর্ব শর্ত :

১. সরকারী/বেসরকারী প্রতিষ্ঠান হতে হবে, ব্যক্তিগত নিরাপত্তার জন্য নয়।

২. আইনগতভাবে বৈধ ব্যবসায়িক কার্যক্রম।

৩. প্রতিষ্ঠানের স্থাপনা জমির মালিকানায় কোন প্রকার মামলা মোকর্দ্দমা থাকবে না।

৪. আনসারদের আবাসন ব্যবস্থা অর্থাৎ ব্যারাক, রান্নাঘর, পানি, বিদ্যুৎ, টয়লেট, ফ্যান, চারপায়া ইত্যাদির সু-ব্যবস্থা থাকতে হবে।

৫. শুন্য ভূমিতে আনসার দেয়া যাবে না।

৬. যেসব প্রতিষ্ঠান বা যাদের (ব্যাংক, বীমা, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান) আগে সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে এ শর্ত প্রযোজ্য নয়।

মোতায়েন প্রক্রিয়া :

১. প্রত্যাশিত প্রতিষ্ঠান কর্তৃক জেলা কমান্ড্যান্ট এর কার্যালয় হতে আবেদনপত্র সংগ্রহ।

২. আবেদনপত্র পুরণ করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ অর্থাৎ জমি/স্থাপনার দলিলসহ বৈধ ব্যবসা সংক্রান্ত কাগজপত্র ননজুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পে অঙ্গীকারনামা ও স্থাপনার স্থিরচিত্র (মেইন গেইটের ছবি, ফ্যাক্টরীর ছবি ও আনসারদের থাকার ব্যারাকের ছবিসহ) জেলা কমান্ড্যান্ট এর কার্যালয়ে জমা দিতে হবে।

৩. সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে আনসার সদস্যদের আবাসন, টয়লেট, গোসলখানা, রান্নাঘর ও জ্বালানীর ব্যবস্থা থাকতে হবে।

৪. সদর দপ্তর হতে অনুমোদন প্রাপ্তির পর আনসারদের তিন মাসের বেতন ভাতার সমপরিমান টাকার পে-অর্ডার/ব্যাংক ড্রাফট্ এর মাধ্যমে অগ্রিম হিসাবে জেলা কমান্ড্যান্ট বরাবর জমা দিতে হবে।

৫. আনসার মোতায়েনে কোন প্রসেসিং ফি নেই।

মেসেজপ্রাপ্ত আনসার অঙ্গীভূতকরণ :

১. মোবাইলে প্রাপ্ত মেসেজ সার্কেল অ্যাডজুট্যান্ট/াফিস সহকারীকে প্রদর্শন এবং অফার সফট্ওয়ারের মাধ্যমে যাচাই করা।

২. নিম্মোক্ত কাগজপত্র জমা প্রদান :

# প্রশিক্ষণ সনদের ফটোকপি।

# স্মার্টকার্ডের ফটোকপি।

# চেয়ারম্যান কর্তৃক নাগরিকত্ব সনদের ফটোকপি।

# জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি।

# শিক্ষাগত সনদের ফটোকপি।

# হালনাগাদ পুলিশ ভেরিফিকেশন রিপোর্ট

# উপরোক্ত সকল কাগজপত্রের মূলকপি প্রদর্শন করতে হবে।

# কোন প্রসেসিং ফি নেই।

আনসার প্রশিক্ষণ :

এই প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে সদস্য-সদস্যাগণ সাধারণ আনসার হিসাবে দায়িত্বপালনে সক্ষম হন এবং সাধারণ আনসার হিসাবে অঙ্গীভূত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেন। নির্ধারিত তারিখে শারিরীক যোগ্যতা যাচাই-বাছাই ও লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে আনসার প্রশিক্ষণের প্রশিক্ষণার্থী বাছাই করা হয়। সাধারণত পত্রিকার মাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়ে থাকে। উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়েও তথ্য পেতে পারেন।

প্রয়োজনীয় যোগ্যতা :

১. ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ থাকতে হবে।

২. বয়স : ১৮ বছর হতে ৩০ বছর (ক্ষেত্র বিশেষে ২৫ বছর)।

৩. উচ্চতা : পুরুষ কমপক্ষে ৫ফুট ৬ইঞ্চি এবং মহিলা কমপক্ষে ৫ফুট ২ইঞ্চি হতে হবে।

৪. শিক্ষাগত যোগ্যতা : নূন্যতম ৮ম শ্রেণী পাশ তবে অধিক শিক্ষিতদেরকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

৫. জাতীয় পরিচয়পত্র থাকতে হবে।

৬. বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে।

৭. শারিরীক ও মানষিকভাবে সুষ্থ্য থাকতে হবে।

৮. পুলিশ ভেরিফিকেশনে বিরূপ মন্তব্য থাকবে না।

৯. কোন প্রসেসিং ফি নেই।

ভিডিপি প্রশিক্ষণ

এই প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে সদস্য-সদস্যাগণ সাধারণ আনসার প্রশিক্ষণ এবং অত্র বাহিনী কর্তৃক পরিচালিত সকল পেশাভিত্তিক প্রশিক্ষণ গ্রহণের যোগ্যতালাভ এবং সরকারী চাকুরীর আনসার-ভিডিপির ১০% কোটায় চাকুরীলাভের সুযোগ থাকবে।    

প্রয়োজনীয় যোগ্যতা :

১. বয়স : ১৮ বছর হতে ৩০ বছর।

২. উচ্চতা : পুরুষ কমপক্ষে ৫ফুট ৪ইঞ্চি এবং মহিলা কমপক্ষে ৫ফুট ২ইঞ্চি হতে হবে।

৩. শিক্ষাগত যোগ্যতা : নূন্যতম ৮ম শ্রেণী পাশ তবে অধিক শিক্ষিতদেরকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

৪. জাতীয় পরিচয়পত্র থাকতে হবে।

৫. বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে।

৬. শারিরীক ও মানষিকভাবে সুষ্থ্য থাকতে হবে।

৭. পুলিশ ভেরিফিকেশনে বিরূপ মন্তব্য থাকবে না।

৮. প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে হবে।

৯. কোন প্রসেসিং ফি নেই।

গ্রামভিত্তিক ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ (পুরুষ ও মহিলা):

এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে গ্রাম প্রতিরক্ষা দলের সদস্য-সদস্যাগণ ভিডিপি সংগঠন সম্পর্কে ধারনালাভ করেন এবং ভিডিপি প্লাটুনের সদস্য হিসাবে দায়িত্বপালন করতে সক্ষম হন।

নিয়মাবলী :

১. সংশ্লিষ্ট গ্রামের ৩২ জন পুরুষ ও ৩২ জন মহিলার সমন্বয়ে গঠিত দুটি প্লাটুনকে সরকারীভাবে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

২. গ্রামের সুবিধাজনক স্থানে ১০(দশ) কার্যদিবস মেয়াদী এই প্রশিক্ষণ পরিচালিত হয়।

৩. প্রশিক্ষণার্র্থীকে সর্বনিম্ন ৮ম শ্রেণী পাশ হতে হয়।

৪. প্রশিক্ষণার্থীর বয়স সর্বনিম্ন ১৮ এবং সর্বোচ্চ ৩০ বছর।

৫. নির্ধারিত হারে প্রশিক্ষণার্থীদের প্রশিক্ষণ ভাতা প্রদান করা হয়।

৬. প্রশিক্ষণ শেষে প্রাপ্ত প্রশিক্ষণ ভাতা থেকে ১০০/- টাকা মূল্যের আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের ১টি শেয়ার ক্রয় করতে হয়।

৭. প্রশিক্ষণার্থীকে প্রশিক্ষণ শেষে সনদপত্র প্রদান করা হয়।

৮. এক গ্রামের সদস্য-সদস্যাকে অন্য গ্রামে প্রশিক্ষণ দেয়া হয় না।

৯. জেলা কমান্ড্যান্ট আর্থিক বছর শুরুর আগেই সংশ্লিষ্ট আনসার ও ভিডিপি অফিসারের সুপারিশ মোতাবেক গ্রাম নির্বাচন করেন।

১০. এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ভিডিপি পুরুষ ও মহিলা প্লাটুন সমূহ পুণর্গঠিত হয়।

১১. কোন প্রসেসিং ফি নেই।

পেশাভিত্তিক ও কারিগরি প্রশিক্ষণ :

মৌলিক প্রশিক্ষণ ছাড়াও পেশাভিত্তিক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একজন আনসার-ভিডিপি সদস্য/সদস্যা স্বণির্ভর হওয়ার সুযোগ পায় এবং আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়। আনসার ও ভিডিপি সংগঠনে প্রতিবছর বিভিন্ন ধরনের পেশাভিত্তিক ও কারিগরি প্রশিক্ষণ পরিচালিত হয়ে থাকে।

যোগ্যতা :

* ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ থাকতে হবে।

* বেসিক কম্পিউটার, মোটর ড্রাইভিং ও মোবাইল ফোনসেট মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষন প্রশিক্ষণের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এসএসসি পাশ থাকতে হবে।

* অন্যান্য প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে  শিক্কষাগত যোগ্মযতা কমপক্ষে ৮ম শ্রেণী পাশ থাকতে হবে।

* প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে হবে।

* কোন প্রসেসিং ফি নেই।

পেশাভিত্তিক প্রশিক্ষণ :

১. বেসিক কম্পিউটার প্রশিক্ষণ 

২. মোটর ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ

৩. ইলেকট্রিশিয়ান প্রশিক্ষণ

৪. মোবাইল ফোনসেট মেরামত ও রক্ষানাবেক্ষন প্রশিক্ষণ

৫. সেলাই ও ফ্যাশন ডিজাইন প্রশিক্ষণ

৬. গার্মেন্টস্ প্রশিক্ষণ

৭. ফ্রিজ ও এয়ারকন্ডিশনার মেরামত প্রশিক্ষণ

৮. সোয়েটার নিটিং প্রশিক্ষণ

৯. অটোমেকানিক্স প্রশিক্ষণ

১০.সেলাই ও ফ্যাশন (অতিরিক্ত নকশি কাঁথা তৈরী) প্রশিক্ষণ

কারিগরি প্রশিক্ষণ :

১. অটোমেকানিক্স প্রশিক্ষণ

২. টাইলস সেটিং প্রশিক্ষণ

৩. কনস্ট্রাকশন পেইন্টিং প্রশিক্ষণ

৪. ম্যাশনারী এন্ড রড বাইন্ডিং প্রশিক্ষণ

৫. ওয়েল্ডিং ৪জি প্রশিক্ষণ

৬. প্লাম্বিং এন্ড পাইপ ফিটিং প্রশিক্ষণ

৭. মোবাইল ফোন সার্ভিসিং প্রশিক্ষণ

৮. ইলেকট্রিক্যাল হাউজ ওয়্যারিং প্রশিক্ষণ

৯. রেফ্রিজারেটর এন্ড এয়ারকন্ডিশনিং প্রশিক্ষণ

প্রত্যয়নপত্র গ্রহণ :

১. জেলা কমান্ড্যান্ট বরাবর আবেদন।

২. সংশ্লিষ্ট উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কর্তৃক আবেদনের উপর লিখিত সুপারিশ।

৩। আবেদনপত্রের সাথে নিম্মোক্ত কাগজপত্র জমা দিতে হবে -

     * প্রশিক্ষণ সনদের ফটোকপি

     * চেয়ারম্যান কর্তৃক নাগরিকত্ব সনদের ফটোকপি

     * জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি

     * উপরোক্ত সকল কাগজপত্রের মূলকপি প্রদর্শন করতে হবে।

     * কোন প্রসেসিং ফি নেই।

আনসার ও ভিডিপি সদস্য-সদস্যাদের প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধা :

১. প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সদস্য-সদস্যাদের সরকারী চাকুরীর ক্ষেত্রে ১০% কোটাপ্রাপ্ত হবেন।

২. কর্মরত অবস্থায় কোন আনসার সদস্য মারা গেলে এককালীন ৫,০০,০০০/- (পাঁচলক্ষ টাকা) এবং আহত হলে এককালীন ২,০০,০০০/- (দুইলক্ষ টাকা) অনুদানপ্রাপ্ত হবেন।

৩. সদস্য-সদস্যাগণ অসুস্থ হলে চিকিৎসার জন্য আর্থিক অনুদান।

৪. সদস্য-সদস্যাদের ছেলে-মেয়েদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান।

৫. সদস্য-সদস্যাদের মেয়ের বিবাহ উপলক্ষে আর্থিক অনুদান প্রদান।

৬. অঙ্গীভূক আনসার সদস্যগণ চাকুরীকালীন রেশন সামগ্রী প্রাপ্ত হবেন।

৭. অঙ্গীভূত আনসা্র সদস্যগণ বাহিনীর নির্ধারিত পোষাক, বুট, হেলমেট, নিগার্ড প্রভৃতি পাবেন।

৮. দৃষ্টান্তমূলক আইন-শৃংখলা রক্ষা, আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ আনসার পদক/ বাংলাদেশ ভিডিপি পদক/ রাষ্ট্রপতি পদক/ আনসার সেবা পদক প্রাপ্ত হবেন এবং এককালীন/মাসিক নগদ অর্থ পুরস্কারপ্রাপ্ত হবেন।

৯. কোন প্রসেসিং ফি নেই।

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter